মহাত্মা গান্ধী জাতীয় গ্রামীণ কর্মসংস্থান গ্যারান্টি অ্যাক্ট (এমজিএনআরইজিএ)

তারিখ : 07/09/2005 - | সেক্টর: সামাজিক সুরক্ষা

        জাতীয় গ্রামীণ কর্মসংস্থান গ্যারান্টি অ্যাক্ট ২০০৫ (এনআরইজিএ) একটি সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্প যা দেশের গ্রামীণ শ্রমিকদের কর্মসংস্থান ও জীবিকা প্রদানের প্রচেষ্টা করে। সমন্বিত ও সামগ্রিক উন্নয়নের বাস্তবায়নে, এনআরইজিএ একটি শ্রম আইন হিসেবে পাস করা হয় এবং ২০০৬ সালে ২০০ টি জেলার মধ্যে বাস্তবায়িত হয়। ২০০৮ সাল নাগাদ এটি সমগ্র দেশে চালু করা হয় । এই পরিকল্পটি কোনও প্রাপ্তবয়স্ককে গ্রামীণ কর্মসংস্থান নিবন্ধনের জন্য প্রত্যেক আর্থিক বছরের ১০০ দিন ন্যূনতম কাজের নিশ্চয়তা প্রদানের জন্য ডিজাইন করা হয়েছিল। অ-দক্ষ কাজের প্রকল্পের মধ্যে এনআরইজিএ র জুড়ি সারা বিশ্বে আর কোথাও নেই । এটি পরবর্তীতে মহাত্মা গান্ধী জাতীয় গ্রামীণ কর্মসংস্থান গ্যারান্টি অ্যাক্ট (এমজিএনআরইজিএ) নামে নামকরণ করা হয়। এমজিএনআরইজিএ প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদের দেওয়া হয়। নিবন্ধিত হওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে কোনো কাজ প্রদান প্রদান করা না হলে, আবেদনকারী বেকার ভাতা পেতে যোগ্য হন।

       গ্রামীণ পঞ্চায়েতগুলির কাছে এমজিএনআরইজিএ বাস্তবায়ন করার দ্বায়িত্ব ছিল। সরকারি সূত্রে জানা যায় যে, প্রকল্পটির শুরু থেকেই ভারত সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী এই প্রকল্পে ২৮৯৮১৭.০৪ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে, যার ফলে ২,৬১,৯৪২ টি কর্মস্থলে (জুন ২০১৫অনুযায়ী তথ্য অনুযায়ী) ৬৮,২৬,৯২১ শ্রমিক নিয়োগ করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে নির্ধারিত ন্যূনতম মজুরি এক দিন ১০০ টাকা ছিল কিন্তু পরে রাষ্ট্রীয় কর্মসংস্থান কর্মসংস্থান নিয়মাবলীর সাথে সংশোধন করে সংশোধিত হয়। ত্রিপুরার ন্যূনতম মজুরি বর্তমানে ১৭৭ টাকা।

দানগ্রাহী:

গ্রামীণ প্রাপ্তবয়স্ক ভারতীয়

লাভ:

গ্রামীণ ভারতে অদক্ষ কাজের সুযোগ

কিভাবে আবেদন করবেন

জেলার নাগরিক রেজিস্ট্রেশনের জন্য তার গ্রাম পঞ্চায়েতে আবেদন করবেন। আবেদন নির্দিষ্ট আবেদনপত্রে বা সাদা কাগজে করতে পারেন। আবেদন মৌখিক ভাবেও দিতে পারেন।